আপনি কতটা Matured? যাচাই করুন নিজের Maturity কে। পর্ব ১। Solve Hobe

0
262

Maturity Maxurity র অনেক Sine আছে। So যারা ভাবে নিজেদের লাইফ responsibility বাড়াতে হবে পরিবারের দায়িত্ব নিতে হবে নিজের self growth এর জিনিসটা নিজের হাতে নিতে হবে।

This video is for you তাদের জন্য এটা না you care lets about what people say a So basically আমরা যখন ছোট থাকি মানুষের যেই কথাবার্তা বলে ওই জিনিসপত্র গুলো আমাদের অনেক গায়ে লাগে।

আমি যখন first ভিডিও তৈরি করেছিলাম আমার এখনো মনে আছে আমি maths এর ভিডিও তৈরি করতাম লসাগুর একটা ভিডিও ছোট একটা point এ properly বোঝাতে পারে না এই জন্য এক লোক বলছে right?

তুই কি বুঝাস ব্যাটা ওই এক কমেন্ট এর কারণে তিন দিন ঘুম হয় নাই আমি চিন্তা করছিলাম যে আমি ভিডিও বানানো ছেড়ে দেবো?

পোস্ট লিখে কি হইলো মানুষের উল্টা আমাকে গালি দিলো? এইভাবে করে কোনো লাভই নাই অনলাইন এ মানুষকে শেখায় কোনো লাভ নাই এই দেশ পুরো হাজারটা চিন্তা।

Let as you go forward. আমি চাই লাখ লাখ মানুষ ভিডিওটা দেখছে। একটা মানুষ একটা কার কথা বলসে তো কি হয়েছে। এটা কিন্তু আমাদের সবার লাইফের জন্যই প্রযোজ্য।

আমাদেরকে কিন্তু অনেক মানুষ ভালো কথা বলে. বাট যে একটা একটা খারাপ কথা বলবে, সারাদিনের সব ভালো কথাগুলোকে ভুলে কিন্তু আমি এক কথাটা নিয়ে পড়ে থাকি।

এবং ওইটা নিয়ে আমরা চিন্তা করতে থাকি ওটা নিয়ে ঘুরপাক খেতে থাকে ওটা নিয়ে নিজেকে judge করা শুরু করি. এবং ওটার ফলে নিজের পথটাকে কমিয়ে দি এবং নিজের কনফিডেন্সটাই কমিয়ে দি এবং যেই কাজ করার অনুপ্রেরণা ছিল ওটাকে সরিয়ে দি কাজটাকে বন্ধ করে দি।

সে চিন্তা করছেন কত বড় একটা লুট ছিল. So as you become older or as experience বা অনেক মানুষের সাথে পরিচয় হয়, YouTube realise. যে মানুষগুলো আপনার থেকে উপরে, ওই মানুষগুলো কিন্তু কখনো আপনা এনে খারাপ কথা বলে না।

ওই মানুষগুলো আপনাকে কিন্তু সবসময় প্রশংসাই করে. আর যেই মানুষগুলো আপত্তি করে নিচে বা আপনার সমান হতে চায় বা আপনার জায়গায় যেতে চায় বা নিজেকে আপনার জায়গায় রেখে কাজকর্ম করতে চায় তার আগে কিন্তু সব সময় আপনার ভুল ত্রুটি গুলো খুঁজে বের করছে. Still number দেখেন।

উপরের মানুষগুলো কিন্তু আপনাকে support ই করে. মানুষগুলো আপনার ভুল ত্রুটি বের করছে. তাদের কথা স্বপ্ন চিন্তা করার খুব একটা দরকার নেই।

তাদের কথা চিন্তা করে তাদের জায়গায় নিজেকে নামানোরও কোন প্রয়োজন আসলে আপনার মনে হয় বোধ করা উচিত না।

Point number স্মল talks no longer এক্সাইটেড. তো আমরা যখন ছোট থাকি। তাই আমি স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটির সময় এখনো মনে আছে আমাদের কনভার্সেশনের টপিক ছিল। ওর ব্রেকআপ হয়েছে।

ওর পেঁচা হুইস্ক responsibilities, লাইফ এর আরো অনেক opportunity গুলো খুঁজে পাওয়া যায়, এখন অবশ্য ছোট ছোট বাচ্চা বা smoot off করে না, তারা start up নিয়ে কথা বলে, film startup completion এর লোকজন দশ লাখ টাকা জিতছে, within এক ছেলে এসে বললো হ্যাঁ আমি ক্লাস ten এ পড়ি।

আমার একটা start up আছে, here is my cut, আমি তো অবাক, যাই হোক, nice তো, তা আস্তে আস্তে ছোটোখাটো জিনিস, মানুষের লাইফে ছোটো ছোটো aspect নিয়ে কথা বলা, এগুলো অভি বললো, দাওয়াতে করে বোধহয় খাবার দিলো, ওর যাওয়াটা কেমন হলো, আবার কালারের সাথে ওর color match করলো।

এইসব জিনিসপত্র থেকে আমরা বের হয়ে আসি. এবং দেখা যায় যে লাইফ এর opportunity, বড় বড় prospect, বড় বড় growth development opportunity এইগুলো নিয়ে আমরা কথা বলা শুরু করি এবং the moment to do that, দেখা যায় যে আস্তে আস্তে নিজের self proof টা যে process টা আছে, অনেক faster হয়ে যায়।

go for point number three don’t engage in arguments or fights basically আমরা ছোট যখন থাকি যখন খুব একটা জিনিসপত্র দেখিনাই আমরা সবসময় সব argument জেতাচ্ছি চেষ্টা করি. But as a always sick একটা argument কখনো জেতা যায় না।

Argument এ যদি আপনি জিতে যান যেই মানুষটাকে আপনি হারিয়েছেন. ওই মানুষটা এখন আপনাকে আরো বেশি অপছন্দ করে। Because আপনি তাকে argument আর যদি আপনি argument হেরে যান তাহলে তো হেরেই গেলেন।

So this is absolutely no point in frying to will argement. So আমার জন্য অনেক রকমের জেতার চেষ্টা করি এটা একেবারে পুরো futal একটা কাজ এটা করে য়ে এলাম।

But আমরা তখন জিতে, তো আরে বাবা মুইকি হুনুরে, আমি তো বিশাল জুস. আমি ওরে একদম পচায়া ফেলছি।

পচাই লাল বানাই দিছি. আর আমার ভাবি যে ঐখানে আমরা একটু অনেক বড় এক জয়লাভ করেছি. But to be very honest. কাউকে argument এ হারিয়ে জয়লাভ তো দূরের কথা, basic respect টাও পাওয়া যায় না।

So as you only stand that যে মানুষকে argument এ হারিয়ে, কোনো কিছুই পাওয়া যায় না, তখন আসলে কেউ কখনো এরকম একটা job and ছোটোখাটো জিনিস নিয়ে argument just দেখে হেসে উড়িয়ে দেয়।

That’s point number three. Let’s go for point number four, you don’t hold ont your regrets or pass failures.

আমরা চল থাকি আমাদের live টার আয়তন বা experience টাও ছোট. সেখানে কোনো একটা event হলে ওই event টা না আমাদের পুরো লাইফ টাকেই shape করে ফেলে।

যেমন আমি SC পাশ করি, আমরা গোল্ডেন মিস হয়েছিল, because আমি বাংলায় প্লাস miss করেছিলাম. আমার তখন মনে হয়েছিল যে গত এগারো বছর পড়াশোনা করে কি লাভ হইল যে বাংলায় প্লাস miss করলাম, আমার golden আসে না, আমি পুরো life টাই বৃথা।

এবং এই বয়সে suicidal একটা সুইসাইড করবো সুইসাইড করে তো আমার প্যারা দেখে নিস তো লাইফ এর scope টা যখন show থাকে ছোটখাটো even একটা বড় impact so দুই ধরনের আস্তে সরিয়ে ফেলে লাইফ বড় হয়ে হতে থাকে ওই লাইফ এ ছোটো inpact টা ধীর দিলে আরো person তাই battery আর ছোটো হতে থাকে but অনেকে ওইটার নিয়ে না ঘুরতে থাকে চিন্তা করুন যদি এটা হইত এই যদি চিন্তাতে এতবার ঘুরপাক খাই ওই লাইফ এর ছোট incident টা আস্তে আস্তে নিজেই নিজের চিন্তা চেতনায় বড় করতে থাকেন।

তো যে জিনিসটা আপনার লাইফ আস্তে আস্তে grow করার সাথে সাথে ছোট হয়ে যাওয়ার কথা, ওই জিনিসটা ছোট না হয়ে জিনিসটা আসতে আসতে বড় হতে থাকে।

আর একটা ছোট বেলুন এর মতো, ছোট বেলুন ফুলানো হয় নাই, একটা ডট দিয়েছেন, বেলুন আস্তে আস্তে ফোলাচ্ছেন, ডট টাও কিন্তু আস্তে আস্তে বড় হয়, কারণ আপনি বেলুনটাকে আপনার লাইফ টাকে বড় করছেন, সাথে সাথে ওই ছোট ঘটনার কথা চিন্তা করে ওই ঘটনাটিও আসতে আসতে বড় করছেন।

so তখন ওই ঘটনাটা আপনার live থেকে আপনার চিন্তা থেকে বের হতে দিচ্ছেন না. একটা তখনই এই ঝামেলাটা হয়।

পয়েন্ট নাম্বার ফাইভ, ইউ এক্সেপ্ট দা হার্ট এক্স. দেখা হয়নি অনেক ঝামেলা চলছে ও চলে যাচ্ছে আমি কি করবো আমি বিদেশ চলে যাচ্ছি এখন কি হবে long distance so আসতে আসতে as you Mature to you feel like this problems best to small. And এই জিনিসগুলো workshop life এ আসে।

বাকি অংশ পাবেন পরের পর্বে।

ধন্যবাদ সকলকে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here